Home / কোম্পানি সংবাদ / ৮ প্রতিষ্ঠানের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ

৮ প্রতিষ্ঠানের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ

ডেইলি শেয়ারবাজার রিপোর্ট: চলতি মাসে অথাৎ সেপ্টেম্বর মাসের ১ তারিখ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ পর্যন্ত পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ভিন্ন ভিন্ন খাতের ৮ প্রতিষ্ঠান সমাপ্ত সময়ের প্রথম, দ্বিতীয় ও দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সংশ্লিষ্ট সুত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কোম্পানিগুলো হচ্ছে: বে-লিজিং অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফিন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি), মেঘনা ইন্স্যুরেন্স, সিএপিএম ইউনিট ফান্ড, সিএপিএম আইবিবিএল ইসলামিক মিউচ্যুয়াল ফান্ড, সিএপিএম বডিবিএিল মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান, ফনিক্স ফাইন্যান্স লিমিটেড এবং সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডে।

বে-লিজিং অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট: প্রথম প্রান্তিক (জানুয়ারি-মার্চ,২২) চলতি হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি কনসুলেটেড ইপিএস (লোকসান) হয়েছে ৪৯ পয়সা। আগের বছর একই সময় আয় ছিল ৩১ পয়সা।

আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য হয়েছে ১৭ টাকা ৩৩ পয়সা। আগের বছর ছিলো ১৭ টাকা ৮২ পয়সা। এছাড়াও শেয়ার প্রতি নেট ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) নেগেটিভ হয়েছে ১৮ পয়সা।

দ্বিতীয় প্রান্তিক (এপ্রিল-জুন,২২) চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ কোম্পানিটির সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২৫ পয়সা। গত বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে সমন্বিতভাবে ৪৯ পয়সা আয় ছিল।

অন্যদিকে হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিক তথা ৬ মাসে (জানুয়ারি’২২-জুন’২২) কোম্পানির সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২৪ পয়সা। গত বছরে আয় ছিল ৮০ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২২ তারিখে সমন্বিতভাবে কোম্পানির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৭ টাকা ৫৮ পয়সা। এবং আগের বছর ছিলো ১৭ টাকা ৮২ পয়সা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নেট ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ২৯ পয়সা। আগের বছর ছিলো ২০ পয়সা।

বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফিন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি): গত সেপ্টেম্বর, ২০২০ তারিখে সমাপ্ত দ্বিতীয় প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর,২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রকাশিত প্রতিবেদনে অনুযায়ী কোম্পানিটির লোকসান বেড়েছে।

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (EPS) হয়েছে ১ টাকা ৮৯ পয়সা। গত বছর একই সময়ে লোকসান হয়েছিল ১ টাকা ০১ পয়সা।

হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিক মিলিয়ে তথা ৬ মাসে (জানুয়ারি’২২-জুন’২২) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৩ টাকা ৫৯ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে লোকসান ছিল ৪ টাকা ৭৯ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২২ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল মাইনাস ৯৭ টাকা ৮৭ পয়সা।

অন্যদিকে বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-জুন,২০) কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি লোকসান করেছে ১ টাকা ৭০ পয়সা। আলোচ্য সময়ে শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ছিল ৯৫ টাকা ৯৭ পয়সা।

এদিকে প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটি লোকসান করেছে ৯৩ পয়সা। সমাপ্ত সময়ে শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ছিল ৯৫ টাকা ২০ পয়সা।

মেঘনা ইন্স্যুরেন্স: গত ৩০ জুন, ২০২২ তারিখে সমাপ্ত দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল’২২-জুন’২২) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রকাশিত প্রতিবেদনে অনুযায়ী দ্বিতীয় প্রান্তিকে লোকসানে রয়েছে কোম্পানিটি।

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (EPS) হয়েছে ৩৩ পয়সা। গত বছর একই সময়ে লোকসান হয়েছিল ৫৯ পয়সা।

হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিক মিলিয়ে তথা ৬ মাসে (জানুয়ারি’২২-জুন’২২) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২৬ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ১ টাকা ১০ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২২ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২০ টাকা ৪৬ পয়সা।

সিএপিএম ইউনিট ফান্ড: সিএপিএম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত সিএপিএম ইউনিট ফান্ডের নীট সম্পদ মূল্য ঘোষনা করেছে।

সকল সম্পদ ও দায় বিবেচনা করে বর্তমান ক্রয়মূল্যে ফান্ডটির মোট নীট সম্পদ মূল্য দাড়িয়েছে ১৫ কোটি ৩৯ লাখ ৭৮ হাজার টাকা ৬৬ পয়সা, বাজারমূল্যে ১৭ কোটি ২৮ লাখ ৯৬ হাজার ১০০ টাকা ০২ পয়সা।

ফান্ডটির অভিহিত মূল্যের বিপরীতে ইউনিট প্রতি নীট সম্পদমূল্য দাড়িয়েছে বর্তমান ক্রয়মূল্যে ১০৭.৪৫ টাকা এবং বাজারমূল্যে ১২০.৬৫ টাকা পুনঃ ধার্যকৃত ইউনিট প্রতি ক্রয় এবং পুনঃ ক্রয় মূল্য হচ্ছে যথাক্রমে টাকা ১২০.৬৫ টাকা এবং ১২০.২৫ টাকা।

সিএপিএম আইবিবিএল ইসলামিক মিউচ্যুয়াল ফান্ড: সিএপিএম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত সিএপিএম আইবিবিএল ইসলামিক মিউচ্যুয়াল ফান্ডের নীট সম্পদ মূল্য ঘোষণা করেছে।

ফান্ডটির সকল সম্পদ ও দায় বিবেচনা করে এর মোট নীট সম্পদ মূল্য দাড়িয়েছে বর্তমান ক্রয়মূল্যে ৭৪ কোটি ৬২ লাখ ৯৭ হাজার ৫৬ টাকা ৩৪ পয়সা এবং বাজারমূল্যে ৮৭ কোটি ৯০ লাখ ৮৮ হাজার ৯৯৩ টাকা ১৯ পয়সা।

অভিহিত মূল্যের বিপরীতে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি নীট সম্পদমূল্য দাড়িয়েছে বর্তমান ক্রয়মূল্যের ১১.১৬ টাকা এবং বাজারমূল্যে ১৩.১৫ টাকা।

সিএপিএম বডিবিএিল মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান: সিএপিএম কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত সিএপিএম বডিবিএিল মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ানের নীট সম্পদ মূল্য প্রকাশ করেছে।

ফান্ডটির সকল সম্পদ ও দায় বিবেচনা করে এর মোট নীট সম্পদ মূল্য দাড়িয়েছিল বর্তমান ক্রয়মূল্যে টাকা ৫৬ কোটি ৪ লাখ ১০ হাজার ৬ টাকা ৮৭ পয়সা এবং বাজারমূল্যে টাকা ৬৬ কোটি ৯৯ লাখ ৬৯ হাজার ৩৪৩ টাকা ৫৫ পয়সা।

অভিহিত মূল্যের বিপরীতে ফান্ডটির ইউনিট প্রতি নীট সম্পদমূল্য দাড়িয়েছে বর্তমান ক্রয়মূল্যের ১১ টাকা ১৮ পয়সা এবং বাজারমূল্যে ১৩ টাকা ৩৬ পয়সা।

ফনিক্স ফাইন্যান্স লিমিটেড: কোম্পানিটির প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি-মার্চ, ২০২২) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির ‌শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৮ পয়সা। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ০.৪০ পয়সা আয় হয়েছিল।

আলোচিত প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি ক্যাশ ফ্লো নেগেটিভ ২৫ পয়সা, যা আগের বছর একই সময়ে ৮৪ পয়সা ছিল। গত ৩১ মার্চ, ২০২২ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য ছিল ১৭.৬২ টাকা।

কোম্পানিটি ৩০ জুন, ২০২২ তারিখে সমাপ্ত দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল’২২-জুন’২২) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী লোকসান করেছে। চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (EPS) হয়েছে ০৭ পয়সা। গত বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১৬ পয়সা।

হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিক মিলিয়ে তথা ৬ মাসে (জানুয়ারি’২২-জুন’২২) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ০.০১ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে ছিল ৫৬ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২২ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৭ টাকা ৫৫ পয়সা।

সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্স: কোম্পানিটি ৩০ জুন,২০২২ সমাপ্ত সময়ের দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

চলতি বছরে দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটি ২৫ কোটি ২৩ লাখ হাজার টাকার প্রিমিয়াম আয় করেছে, যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ১০ কোটি ৪০ লাখ টাকা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির লাইফ ফান্ডের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৭০০ কোটি ১৮ লাখ টাকা। আগের বছর একই সময় লাইফ ফান্ডের পরিমাণ ছিল ৭৫০ কোটি ৫৪ লাখ টাকা।

হিসাব বছরের দুই প্রন্তিক মিলে অর্থাৎ ৬ মাসে (জানুয়ারি-জুন,২২) কোম্পানিটির প্রিমিয়াম আয় হয়েছে ৫৬ কোটি ২ লাখ টাকা। আর লাইফ ফান্ডের পরিমাণ দাড়িয়েছে ৭০০ কোটি ১৮ লাখ টাকা। আগের বছর একই সময় কোম্পানির প্রিমিয়াম আয় ছিল ৪৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা। আর লাইফ ফান্ডের পরিমাণ ছিল ৭৫০ কোটি ৫৪ লাখ টাকা।

ডেইলি শেয়ারবাজার ডটকম/

Check Also

বোর্ড সভার তারিখ জানিয়েছে রিলায়েন্স ইন্সুরেন্স

ডেইলি শেয়ারবাজার রিপোর্ট: বোর্ড সভার তারিখ জানিয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি রিলায়েন্স ইন্সুরেন্স লিমিটেড। ডিএসই সূত্রে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *